শুক্রবার, ০৭ অগাস্ট ২০২০, ০৬:২২ পূর্বাহ্ন

লামায় অসহায় মহিলার জায়গা কেড়ে নিল ইউনিয়ন আওয়ামীগের নেতা

মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, লামা (বান্দরবান)
  • আপডেট সময় বুধবার, ১ জুলাই, ২০২০
  • ৬৪০ পাঠক সংখ্যা
পিলার ও তারের বেড়া দিয়ে অসহায় মহিলার ৮০শতক জায়গা দখল করে নেয় আওয়ামীলীগ নেতা।

বান্দরবানের লামা উপজেলায় ফিল্মী স্টাইলে অসহায় মহিলার বসতবাড়ি সংলগ্ন প্রায় ৮০ শতক জায়গা দখল করে নিয়েছে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি। উপজেলার ফাইতং ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের সুতাবাদী গ্রামে বুধবার (১লা জুলাই ২০২০ইং) সকাল ৮টায় এই ঘটনা ঘটে।

এই বিষয়ে বিচার চেয়ে জায়গার মালিক মাহাতাব হাওলাদার এর মেয়ে মাহমুদা বেগম (৪১) ফাইতং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হেলাল উদ্দিন সহ ১০জনকে বিবাদী করে ও ৭০/৮০ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামী করে বুধবার দুপুরে লামা থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, জায়গার মালিক মাহাতাব হাওলাদার সরকার হতে ১৯৮১-৮২ সালে বন্ধোবস্তি পেয়ে লামার ৩০৬নং ফাইতং মৌজায় আর হোল্ডিং-৮১১ মূলে ৫ একর জায়গা বসতবাড়ি নির্মাণ ও বাগান সৃজন করে ভোগদখলে রয়েছে। মাহাতাব হাওলাদার বৃদ্ধ-পঙ্গু হয়ে গেলে ও তার মেয়ে মাহমুদা বেগমকে অসহায় পেয়ে লোভের বশিভূত হয়ে সুতাবাদী এলাকার মৃত দেলোয়ার হোসেনের ছেলে ও উক্ত ফাইতং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি হেলাল উদ্দিন পরিবারের লোকজন ও ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী এনে উক্ত জায়গা জবরদখলের জন্য হামলা চালায়।

বুধবার সকাল ৮টায় হেলাল উদ্দিনের নেতৃত্বে তার ৮/১০জন আত্মীয় স্বজন ও ১টি ট্রাক, ৩টি সিএনজি করে ৭০/৮০ জন ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী দিয়ে ধারালো দা, কিরিচ, লোহার রড ইত্যাদি নিয়ে জায়গা দখলে হামলা করে। এসময় তারা পিলার ও তারের বেড়া দিয়ে মাহাতাব হাওলাদারের ভোগদখলীয় জায়গা হতে প্রায় ৮০ শতক জায়গা জোর করে দখল করে নেয়। দখলে বাধা দিলে তারা জোৎস্না বেগম নামে এক মহিলাকে মারধর করে।

মাহমুদা বেগম জানায়, আমরা উক্ত জায়গা ৪০ বছর যাবৎ ভোগদখলে আছি। বুধবার সকালে জোর করে জায়গা দখল করতে এলে আমি প্রতিবাদ করলে হেলাল উদ্দিন, তার শশুড় মন্নান ও ৫নং ওয়ার্ডের বর্তমান মেম্বার জুবাইর ধারালো দা দেখিয়ে আমাদের ভয় দেখায়। বলে বাধা দিলে আমাদের প্রাণে হত্যা করবে। এদিকে হামলার খবর পেয়ে ফাইতং পুলিশ ফাঁড়ি হতে ঘটনাস্থলে পুলিশ আসলে বিবাদী ও ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়।

এই বিষয়ে অভিযুক্ত হেলাল উদ্দিন এর সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, আমি আমার জায়গা ঘেরাবেড়া দিতে লোক দিয়েছি। আমার উক্ত জায়গার কাগজ পত্র আছে।

পিলার ও তারের বেড়া দিয়ে অসহায় মহিলার জায়গা দখল করে নেয় আওয়ামীলীগ নেতা।

ফাইতং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ওমর ফারুক বলেন, এই ঘটনায় এলাকার মানুষ আওয়ামীলীগকে ছিঃ ছিঃ দিচ্ছে। একজন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতির এমন কাজে মানুষ আতংকিত হয়ে পড়েছে। সমগ্র ফাইতং জুড়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। আমরাও এই ঘটনায় নিন্দা জানাই।

ফাইতং ইউপি চেয়ারম্যান জালাল উদ্দিন বলেন, বিষয়টি আমি জানতে পেরে অসহায় মহিলাকে আইনের আশ্রয় নিতে পরামর্শ দিয়েছি।

লামা থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মিজানুর রহমান বলেন, মাহমুদা বেগম এই বিষয়ে লামা থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছে। আমরা তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো সংবাদ
error: